বিটকয়েন কি কেন ও কিবাবে । বিটকয়েন উপার্জন করবেন কি?

বিটকয়েন কি ও কেন? বিটকয়েন উপার্জনের উপায়। বিটকয়েন কি বাংলাদেশে বৈধ? পড়ুন বিটকয়েন কিভাবে কাজ করে। বিটকয়েন ওয়েবসাইট ও বিটকয়েন একাউন্ট খোলার নিয়ম

বিটকয়েন কি কেন ও কিবাবে । বিটকয়েন উপার্জন করবেন কি?

বিটকয়েন কি কেন ও কিবাবে । বিটকয়েন উপার্জন করবেন কি

আজকে আমরা জানার চেষ্টা করব সেরা একটি ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে। এক গবেষণায় দেখা গেছে অনলাইনে ধরনের ক্রিপ্টোকারেন্সি সংখ্যা আট হাজারেরও বেশি। তবে সবকিছুর মধ্যে বিটকয়েন সবার সেরা। আজকে আমরা জানার চেষ্টা করব কিভাবে বিটকয়েন উপার্জন করা যায় বিটকয়েন কি ও কেন। এই বিটকয়েন কি বাংলাদেশে বৈধ ?। বিটকয়েন ব্যবসা। আজকে আমরা আপনাদের মনে থাকে বিটকোইন নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করুন। শুরু করা যাক।

বিটকয়েন কি ও কেন

বিটকয়েন হচ্ছে মূলত একটি ভার্চুয়াল মুদ্রা। এটি ভার্চুয়াল ভাবে আদান-প্রদান হয়ে থাকে। এটি এমন একটি মুদ্রা যা হাতে ছোঁয়া যায় না। আপনার কাছে যদি কিছু বিটকয়েন বা যে কোন ক্রিপ্টোকারেন্সি থাকে সে ক্ষেত্রে আপনি শুধু জানবেন আপনার কাছে বাংলাদেশে সমান অথবা আপনি যে দেশেই থাকেন না কেন সে দেশের টাকা অনুযায়ী আপনার কাছে বিশাল অঙ্কের টাকা রয়েছে। আপনি শুধু জানবেন আপনার কাছে কত টাকা আছে কিন্তু আপনি সে টাকা হাতে ধরতে পারবেন না এটি ভার্চুয়াল ভাবে লেনদেন করতে পারবেন। 

তখনই আপনি হাতে ধরতে পারবেন যখন আপনি ক্রিপ্টোকারেন্সি দেখে আপনার দেশীয় টাকায় রূপান্তর করবেন। ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েনটি 2009 সালে Satoshi Nakamoto একদল গ্রুপ অর্থাৎ একটি একটি অনলাইন গ্রুপ এর প্রথম আবিষ্কার করে সেই থেকে ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন প্রচলন শুরু হয়।

আমরা অনেকেই মনে করি কীভাবে এটি একটি দামি ক্রিপ্টোকারেন্সি হয়। যার কোন ব্যাংক বা কোন কেন্দ্রীয় সরকার নেই যে তাকে কন্ট্রোল করবে। আমরা দেখতে পাই টাকা ও ডলার এর মত যত যত দেশের মধ্যে রয়েছে সবগুলো একটি কেন্দ্রীয় ব্যাংক বা সরকার নিয়ন্ত্রণ করে থাকে কিন্তু বিটকয়েনের কোন কেন্দ্রীয় সরকার বা ব্যাংক নেই তাহলে কি করে দামি হয়। 

ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন মূলত ডিজিটাল ভার্চুয়াল মুদ্রা নোড এর মাধ্যমে লেনদেন করা হয়।ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন মূলত ক্রিপ্টোগ্রাফি মাধ্যমে ব্যবহার করা হয়। এই ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন মূলত ব্লকচেইন নামক একটি ডিস্ট্রিবিউটর এর মাধ্যমে ব্যবহার করা হয় যেটি মূলত ভার্চুয়াল কয়েন গুলো কে পাবলিকের কাছে সংযোগ স্থাপন করতে সাহায্য করে থাকে। 

ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন যেকোনো দেশের মুদ্রার সাথে এক্সচেঞ্জ করা যায় আমাদের বাংলাদেশে বিভিন্ন উপায় রয়েছে যে উপায়গুলি অবলম্বন করলে আপনিও বিটকয়েন থেকে আমাদের দেশে টাকায় রূপান্তর করতে পারবেন। যদিও আমাদের দেশে এখনো বিটকয়েন বৈধ ঘোষণা করা হয়নি তারপরও কিছু অনলাইন প্রতিষ্ঠান কেনাকাটা ক্ষেত্রে বিটকয়েন ব্যবহার করে থাকেন। বিটকয়েনের একক হল সাতশি - আর  ১বিটকয়েন=১০০০০০০০০০ , 

বিটকয়েন আয়

আমরা যারা বিটকয়েন সম্পর্কে অতটা ধারণা রাখে না। তারা হয়তো মনে করেন বিটকয়েন একটি টাকা নোটের মতো যখন তখন আপনি ইনকাম করে ব্যাংক থেকে আনতে পারবে। আসলে ব্যাপারটা কিন্তু তা না। বিটকয়েন হচ্ছে একটি ভার্চুয়াল মুদ্রা এটি কেবল দেখা যায় এটি হাতে স্পর্শ করা যায় না। 

আমরা যারা বিটকয়েন ইনকাম এর কথা ভাবছি তারা বিভিন্ন উপায়ে বিটকয়েন ইনকাম করতে পারবেন বিটকয়েন ইনকাম করতে গেলে আপনাকে কিছু প্রসেস জানতে হবে এবং কিভাবে ইনকাম করতে হবে সে সম্পর্কে আপনাকে জ্ঞান লাভ করতে হবে। 

অনলাইন আপনি যদি বিটকয়েন উপার্জন করতে চান সে ক্ষেত্রে আপনি অনেক পেয়ে যাবেন যেখানে তারা বিভিন্ন রকম ছোট ছোট কাজ করে আপনাদেরকে বিটকয়েন ইনকাম এর সুযোগ করে দেবে। তবে সে ক্ষেত্রে কিছু কিছু ওয়েবসাইট রয়েছে যারা প্রতারণা করে মানুষের সাথে। 

মানুষ যখন তাদের ওয়েবসাইটে গিয়ে অ্যাকাউন্ট তৈরি করে এবং ইনকাম শুরু করতে থাকে কিছু সময় যাওয়ার পর ওই ওয়েবসাইটের মালিকেরা একাউন্ট ডিজেবল করে দেয় যারা ইনকাম এর আশায় তাদের ওয়েবসাইটে এসেছিল। এবং আপনি অনলাইনে বিটকয়েন ইনকাম এর কিছু সফটওয়্যার পেয়ে যাবেন যেগুলো থেকে আপনি ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন উপার্জন করতে পারবেন।

Bitcoin Anonymous

আমরা অনেকেই মনে করি বিটকয়েন যেহেতু একটি ভার্চুয়াল মুদ্রা এবং এটি অনেক সিকিউরিটি পূর্ণভাবে লেনদেন করা হয় সে ক্ষেত্রে বিটকয়েন কে ট্র্যাক করা যায়না। আমাদের এ ধারণাটি সঠিক নয়। আমরা যারা বিটকয়েন এর সাথে কমবেশি জড়িত এবং বিজ্ঞান সম্পর্কে কম-বেশি ধারণা রাখে তারা সবাই জানি বিটকয়েন লেনদেন হয়নি কন্ট্রোল করা হয় মূলত ব্লকচেইন এর মাধ্যমে। 

সেও তো আপনি এখন বুঝতে পারছেন যদি কেউ চাই বিটকয়েনের লেনদেন চেক করতে তাহলে সে ব্লকচেইন এর মাধ্যমে চেক করতে পারবে। কেউ যদি ব্লকচেইন সঠিকভাবে ভেরিফাই করে তাহলে সে সব লেনদেন সেখানে দেখতে পারবে। 

বিটকয়েন যেহেতু একটি ভার্চুয়াল মুদ্রা এবং এটি একটি ইন্টার্নেশনাল ভার্চুয়াল কয়েন সে ক্ষেত্রে লেনদেন করা হয় হাইসিকিউরিটি দিয়ে। সে ক্ষেত্রে কেউ যদি এই বিটকয়েন ট্র্যাক করতে চাই সেক্ষেত্রে তাকে টপ লেভেলের প্রোগ্রামার হতে হবে না হয় সে বিটকয়েন লেনদেন ট্র্যাক করতে পারবে না।

বিটকয়েন কি স্থির থাকে?

আমরা অনেকেই মনে করি বিটকয়েন যেহেতু একটি ভার্চুয়াল মুদ্রা সে ক্ষেত্রে এটি হয়তো স্থির থাকে। কিন্তু কথাটি একদম সঠিক নয় বিটকয়েন স্থির থাকে না এটি একটি চলমান ভার্চুয়াল মুদ্রা। প্রতি 10 মিনিট অন্তর অন্তর বিটকয়েন মাইনিং যারা করে তারা একটি করে ব্লকচেইন উৎপন্ন করে। 

বর্তমানে বিটকয়েন মাইনিং করা অনেক জটিল হয়ে পড়েছে তবে আপনি যদি ভালো মানের হার্ডওয়ার ব্যবহার করেন সে ক্ষেত্রে আপনি ভাল মাইনিং করতে পারবেন বিটকয়েন। যা হোক যেহেতু প্রতি 10 মিনিট অন্তর অন্তর একটি করে ব্লকচেইন উৎপন্ন করছে যারা বিটকয়েন মাইনিং করেন । 

বিটকয়েন স্থির একথাটা মনের করা একদমই ঠিক না। বর্তমানে বিটকয়েন বিভিন্ন লেনদেনে ব্যবহার করা হচ্ছে বিটকয়েন এখন ব্যাংকিং সিস্টেমে বিনিয়োগ হচ্ছে তাই বলা যায় এটি একটি চলমান ভার্চুয়াল মুদ্রা। 

বর্তমানে বিটকয়েন মাইনিং করা একার পক্ষে সম্ভব কি?

এই কথাটা ঠিক যে একসময় বিটকয়েন মাইনিং করা অনেক সহজ ছিল যে কেউ চাইলে খুব সহজে বিটকয়েন মাইনিং করতে পারতো কিন্তু সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে বিটকয়েন মাইনিং করা অনেকটাই জটিল হয়ে পড়েছে। তার মানে এই না যে বিটকয়েন মাইনিং করা যাবে না বিটকয়েন মাইনিং করা যাবে তবে একটু কঠিন হয়ে পড়েছে আগের থেকেও। 

তাই অনেকে মনে করেন বর্তমানে বিটকয়েন মাইনিং করা যেত অনেক কষ্টের বিটকয়েন মাইনিং করা থেকে বিটকয়েন ক্রয় করা অনেক ভালো। সত্যি কথা বলতে আমরা যারা এ ধরনের কথাটি ভাবি তারা খুব কম জানি বিটকয়েন সম্পর্কে কারণ প্রত্যেক 10 মিনিট পর পর একটি করে বিটকয়েন জেনারেটর তৈরি হচ্ছে যেখানে বিটকয়েন মাইনিং করা হয় এবং তা ব্লকচেইন এর মাধ্যমে ব্যবহার করা হয়।

বাস্তব জীবনে বিটকয়েনের প্রভাব

আমরা সবাই জানি বিটকয়েন অনেক দামী একটি ভার্চুয়াল মুদ্রা। কিন্তু তারপরও আমাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছেন যারা মনে করেন বিটকয়েন কিভাবে কতটা দামি হতে পারে যেখানে এর কোনো নিয়ন্ত্রণ সংস্থার ব্যাঙ্ক অথবা কোন সরকার নেই যারা এই ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন তাকে নিয়ন্ত্রণ করবে। 

আসলে কোন কিছুর দাম নির্ধারণ সরকার বা কোনো নিয়ন্ত্রণ সংস্থা করেন কোন কিছুর দাম জনগণই করে তোলে। আমেরিকার সরকার ডলারকে মূল্যবান করেছে কিন্তু সে ক্ষেত্রে জনগণ যদি চায় ডলারকে মূল্য না দিয়ে তারা অন্য কিছু কি মূল্য দিতে পারে সে ক্ষেত্রে ওই ডলারের আর কোনো মূল্য থাকবে না। 

তেমনি ভাবে বিক্রি হচ্ছে একটি ভার্চুয়াল মুদ্রা যেখানে মুদ্রাটির কোন নিয়ন্ত্রণ সংস্থা ব্যাংক এবং কোনো নিয়ন্ত্রণ কারি সরকারও নেই তারপরও এই বিটকয়েনের অনেক মূল্য এটি একমাত্র জনগণের দ্বারা সম্ভব জনগণ যাকে চায় তাকে দামি করে তুলবে। 

আরো অনেক বড় বড় দেশ ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন থেকে বৈধ বলে ঘোষণা করেছে তাই অনলাইন জগতে এখন অনেক কেনাকাটা সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে এই ভার্চুয়াল মুদ্রার প্রচলন দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বিটকয়েন কি একমাত্র ডিজিটাল ক্রিপ্টোকারেন্সি?

বিটকয়েন একমাত্র ডিজিটাল ক্রিপ্টোকারেন্সি নয়। অনলাইনে আয় 8000 উপরে ডিজিটাল ক্রিপ্টোকারেন্সি রয়েছে যেগুলোকে ভার্চুয়াল মুদ্রা বলা হয়ে থাকে। এখন আমাদের মনে প্রশ্ন আসতে পারে আমরা তো কেবল ক্রিপ্টোকারেন্সি হিসেবে বিটকয়েন বিটকয়েন এই নামটা শুনেছি এগুলো কেন শুনিনা। 

এর প্রধান কারণ হচ্ছে বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন সংবাদপত্রে নিউজ হলেও ওই সমস্ত ক্রিপ্টোকারেন্সি গুলো নিয়ে অতোটা নিউজ হয়না। আর সবচেয়ে বড় কারণ হচ্ছে যেটা যতরকম ডিজিটাল কারেন্সি রয়েছে অনলাইন জগতে সবগুলো বিটকয়েন হচ্ছে সবার সেরা এবং দামী একটি ভার্চুয়াল মুদ্রা। তাই সবাই বিটকয়েনের দিকে বেশ আকৃষ্ট হচ্ছে। 

মাইনিং করে বিটকয়েন উপার্জন

বর্তমানে যারা বিটকয়েন এর সাথে জড়িত তারা বেশিরভাগই বিটকয়েন মাইনিং করে ইনকাম করে থাকে। অনেকে রয়েছেন বিটকয়েন কে তাদের পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন সে ক্ষেত্রে তারা এই মাইনিং' পদ্ধতির মাধ্যমে বিটকয়েন উপার্জন করে থাকে। 

যারা বিটকয়েন মাইনিং করে বিটকয়েন আর্নিং বিটকয়েন উপার্জন করে, সে কাজকে বিটকয়েন মাইনিং বিটকয়েন উপার্জন না বলে বিটকয়েন উৎপাদন বলাটা হবে সব থেকে শ্রেষ্ঠ কারণ তারা নতুন নতুন উৎপাদন করে এবং সে উৎপাদনকৃত অনলাইনের মাধ্যমে সেল করে থাকে। যারা বিটকয়েন মাইনিং করে বিটকয়েন আর্নিং বিটকয়েন উপার্জন করে তাদেরকে বিটকয়েন মাইনার বলে। 

বিটকয়েন মাইনিং বিটকয়েন উৎপাদন করতে গেলে উচ্চমাত্রার গ্রাফিক্স কার্ড ব্যবহার করতে হয়।তারা অতি উচ্চমাত্রার গ্রাফিক্স কার্ড দিয়ে বিটকয়েন উৎপাদন করে থাকে। আমাদের কাছে যে গ্রাফিক্স কার্ড গুলো রয়েছে সেগুলো দিয়ে যদি আমরা বিটকয়েন উৎপাদন করতে চাই সে ক্ষেত্রে আমাদেরকে এক বিটকয়েন উৎপাদন করতে গিয়ে কয়েক বছর লেগে যেতে পারে। 

কিন্তু যারা প্রফেশনালভাবে বিটকয়েন উৎপাদন করে তারা উচ্চমাত্রার গ্রাফিক্স কার্ড ব্যবহার করে তাদের কাছে এতটাই গ্রাফিক্স কার্ড রয়েছে যে তাদের উচ্চমাত্রার গ্রাফিক্স কার্ডগুলো নিয়ে তাদের রুমবরা। 

মোবাইল অ্যাপ দিয়ে বিটকয়েন উপার্জন

আমার কাছে অবশ্য এ বিষয়টি ভালো রেখেছেন কারণ আমাদের অনেকের বিটকয়েন উপার্জন করার মতো সে আর্থিক আমাদের নেই কারণ আমরা যদি বিটকয়েন উৎপাদন করতে যায় সে ক্ষেত্রে আমাদের অনেক টাকা খরচ করতে হবে। 

কিন্তু আমরা আমাদের হাতে থাকায় স্মার্টফোনটি দিয়ে বিটকয়েন ইনকাম করতে পারব সে ক্ষেত্রে যারা স্টুডেন্ট রয়েছে তাদের জন্য এটি একটি দারুন বিষয়। বাংলাদেশ-ইন্ডিয়া সহ বিভিন্ন দেশে সফটওয়্যার গুলো তৈরি হচ্ছে যে সফটওয়্যার গুলোর মাধ্যমে বিটকয়েন ইনকাম করা যায়। তবে আপনি যদি সফটওয়্যার দিয়ে বিটকয়েন ইনকাম করতে চান সে ক্ষেত্রে আপনার ইনকাম কম হবে। 

তবে ধীরে ধীরে ইনকাম বাড়ানো যায়। তবে আমি ব্যক্তিগতভাবে এই পদ্ধতিতে ইনকাম করা পছন্দ করি না কারণ এখানে আপনি যে পরিমাণ ইনকাম করবেন তার থেকে বেশি আপনাকে পরিশ্রম করতে হবে আর সবচেয়ে মজার হাস্যকর বিষয় হচ্ছে দেখান আপনার ইনকাম এর তুলনায় এমবি খরচ বেশি হবে।আমার দেখা যায় কিছু কিছু সফটওয়্যার রয়েছে কিন্তু এগুলো থেকে ইনকাম করতে পারবেন কিন্তু আপনি ঠিকমতো পেমেন্ট পাবেন না তাই এ সকল অ্যাপস এ কাজ করা মূলত সময়ের অপচয় করা।

আমাদের শেষ কথা
বিটকয়েন এর চেয়েও ওয়ান অফ দা বেস্ট ভার্চুয়াল মুদ্রা। আজকের পোষ্টে আমরা বিটকয়েন কি ও কেন এবং বিটকয়েন উপার্জন সম্পর্কে কিছু ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করেছি আমরা আশা করি বিশ্বসেরা এই ভার্চুয়াল মুদ্রা বিটকয়েন এর উপর আমরা আরও কিছু আর্টিকেল পাবলিশ করব আমাদের ওয়েবসাইটে আপনাদের জন্য আজকের পোস্টটি ভাল লাগে অবশ্যই শেয়ার করে দিবেন।